1. admin@dailyjelapost.com : admin :
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৭:১০ অপরাহ্ন

করিমগঞ্জে ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজের শ্রমিক ফাঁকির অনিয়ম

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২
  • ১১১ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলা অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থানের জন্য ২য় পর্যায়ে ৪০ দিনের কর্মসূচিতে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এসব কর্মসূচির প্রকল্প তালিকায় দরিদ্র ব্যক্তিদের নাম থাকলেও বাস্তবে কাজ করানো হচ্ছে বাইরের শ্রমিক দ্বারা।

জানা যায়, করিমগঞ্জের উপজেলার কাদিরজঙ্গল ১ নং ইউনিয়নের ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের ইউপি সদস্য সেলিনা আক্তার।

করিমগঞ্জ উপজেলার কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নে ৪০ দিনের কর্মসূচিতে প্রকল্প তালিকার শ্রমিক দ্বারা কাজ না করিয়ে কন্ট্রাক্ট শ্রমিক দ্বারা কাজ করাচ্ছেন; যা প্রকল্পের নিয়মবহির্ভূত কাজ। তাই প্রকল্পের চলমান কাজ দ্রুত বন্ধ করে এলাকার গরিব অসহায় মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেয়ার অনুরোধ জানান এলাকার স্থানীয় ব্যক্তিরা।

সরেজমিন দেখা যায়, ৪০ দিনের কর্মসূচির , বরাদ্দ পাওয়া প্রকল্পের নাম বাঙ্গিরচর পাকা রাস্তা হইতে পশ্চিমের খালের ব্রিজ পর্যন্ত এবং পিটুয়া পশ্চিম পাকা রাস্তা হইতে মসজিদ ভায়া উত্তর দিকে পারিবারিক গোরস্তান পর্যন্ত রাস্তা মেরামত ।রাস্তার জন্য শ্রমিক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৬০ জন, সরেজমিনে গিয়ে শ্রমিক পাওয়া যায় মাত্র কয়েক জন ।প্রকল্পের সভাপতি ইউপি সদস্য সেলিনার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে ইউপি সদস্য বলেন শ্রমিক পাওয়া যায়না কি করবো তাছাড়া আশপাশে মাটি নেই আনার ব্যবস্থা করছি শ্রমিক লাগাব ।

১ নং কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নের ৭,৮,৯, সংরক্ষিত ইউপি সদস্য সেলিনা (প্রকল্প সভাপতি) কাজে শ্রমিক ফাঁকি দিয়ে কাজ সম্পূর্ণ করার চেষ্টা করছেন ।নিয়মানুযায়ী প্রকল্প তালিকার বাছাইকৃত শ্রমিকদের প্রত্যেকে দৈনিক ৪০০ টাকা মজুরিতে ১৬ হাজার টাকা পাওয়ার কথা। ৪০ দিনের কাজের স্থলে বাইরের শ্রমিক দিয়ে মাত্র ৬ দিনেই কাজ সম্পন্ন করার পাঁয়তারা চলচে ।

প্রকল্পের তালিকাভুক্ত শ্রমিক, করেন, তালিকায় নাম আছে কিনা তা তারা জানেন না। তারা কোনোদিন কাজও করেননি এবং কোনো টাকাও পাননি! কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নে এমন আরো প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে সেখানেও একই অবস্থা।

সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য সেলিনা আক্তার ডেইলী জেলা পোষ্ট কে বলেন, আমি অল্প একটু কাজ পাইছি। তবে ৪০০ টাকা হাজিরায় কেউ কাজ করতে চায় না। তাই অন্য লেবার দিয়ে করাতে হয়।

করিমগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা স্বপন মাতব্বর কাছে মুঠোফোনে অনিয়মের বিষয়টি জানতে চাইলে উনি বলেন বরাদ্দ অনুযায়ী শ্রমিক দিয়ে প্রকল্পে কাজ করাতে হবে অন্যথায় এদেরকে বিল দেওয়ার প্রশ্নই আসে আইন বহির্ভূত কাজ কখনো সরকার মেনে নেবে না, আগামীকাল ঐ প্রকল্প আমি পরিদর্শন করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Daily Jela Post
Theme Customized By Theme Park BD